avertisements 2

শ্রীলংকান নারীকে কুয়েতে বিয়ে, টাকা হাতিয়ে দেশে এনে নির্যাতন

ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশ: ১২:৪১ এএম, ২০ মার্চ,শনিবার,২০২১ | আপডেট: ০৪:৫৫ এএম, ১৭ মে,সোমবার,২০২১

Text

মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলার ঘোলসা গ্রামের সৈয়দ আব্দুল বাছিত কুয়েতে চাকরির সুবাদে পরিচয়সূত্রে শ্রীলংকান নাগরিক শরীফা সাইয়্যিদকে বিয়ে করেন প্রবাসে থাকাকালীন সময়ে। এরপর ২০০৯ সালে ৪ সন্তানসহ বাংলাদেশে স্থায়ীভাবে ফিরেন বাছিত-শরীফা দম্পতি।

পরের বছর জন্ম নেয় তাদের পঞ্চম সন্তান। এরই মধ্যে শরীফা জানতে পারেন অন্য মেয়েকে বিয়ে করে গোপনে সংসার করছেন স্বামী বাছিত। স্ত্রী ভিনদেশী নাগরিক শরীফার কুয়েতে থাকাকালীন রোজগারের ৪০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার পর বাড়ি থেকে তাড়াতে শারীরিক নির্যাতন ও তালাকসহ প্রাণনাশের হুমকি প্রদানের অভিযোগে তিনি বড়লেখা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে স্বামী ও তার দ্বিতীয় স্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

বড়লেখা আদালতের সিআর-২৪৬/২০ নম্বর মামলা সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ২০ বছর পূর্বে কুয়েতে শ্রীলংকান মহিলা শরীফা সাইয়্যিদকে ইসলামী শরিয়া মতে বিয়ে করেন বড়লেখার ঘোলসা গ্রামের কুয়েত প্রবাসী মৃত সৈয়দ আব্দুল মুকিতের ছেলে সৈয়দ আব্দুল বাছিত। কুয়েতে থাকা অবস্থায় বাছিত-শরীফা দম্পতির চার সন্তানের জন্ম হয়। প্রায় ১১ বছর পূর্বে দেশে আসার পর তাদের ৫ম সন্তানের জন্ম হয়।

বিবাহের আগে থেকেই দেশে জায়গা-জমি ক্রয় ও ব্যবসার জন্য বাছিত স্ত্রী শরীফার রোজগারের ৪০ লাখ টাকা নিয়ে নেন। প্রায় ১১ বছর পূর্বে বাছিত স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য বাংলাদেশে চলে আসেন। কিছু দিন অবস্থানের পর শরীফা জানতে পারেন বাছিত গোপনে দ্বিতীয় বিয়ে করে অন্যত্র সংসার করছেন। ৫ সন্তানের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে ভিনদেশী শরীফা সবকিছু নীরবে সহ্য করেন।

কিছুদিন অতিবাহিত হওয়ার পর দ্বিতীয় স্ত্রী সাবানা আক্তার চৌধুরীর প্ররোচনায় আব্দুল বাছিত প্রথম স্ত্রী শরীফা সাইয়্যিদের ওপর টাকা-পয়সা(যৌতুক)দাবি করতে থাকেন। আপত্তি প্রকাশে নেমে আসে শারীরিক নির্যাতন। ভরণপোষণও বন্ধ করে দেন। বাছিত বিদেশ যাওয়ার জন্য ৫ লাখ টাকা দাবি করে বসেন।

শ্রীলংকান নাগরিক ও বাংলাদেশি বধূ শরীফা সাইয়্যিদ জানান, আমি দেশ ও ধর্ম ত্যাগ করে বাছিতকে বিয়ে করে বাংলাদেশে এসেছি। সে আমার সর্বস্ব হাতিয়ে অন্য মেয়েকে বিয়ে করে সংসার করছে। বিদেশ যাওয়ার জন্য ৫ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেছে। আমি সব ছেড়ে এসেছি। কোথা থেকে টাকা আনবো। টাকা দিতে না পারায় অমানসিক নির্যাতন করেছে। টাকা না দিলে তালাকের ও প্রাণনাশের হুমকি অব্দি দিচ্ছে, বাড়ি থেকে তাড়াতে দ্বিতীয় স্ত্রীকে ডেকে এনে মারধর করছে। খোঁজ নেয় না, ভরণপোষণ দেয় না। প্রতিবেশীদের অনুগ্রহে বাঁচতে হচ্ছে। বাধ্য হয়ে আমি আদালতের শরণাপন্ন হয়েছি।

বিষয়:

আরও পড়ুন

avertisements 2