avertisements 2

বিধিনিষেধ অমান্য ও পুলিশকে লাঞ্চিত করায় গ্রেফতার-২

বিধিনিষেধ অমান্য ও পুলিশকে লাঞ্চিত করায় গ্রেফতার-২

ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশ: ১২:০০ এএম, ২৫ জুলাই,রবিবার,২০২১ | আপডেট: ০৪:৩২ এএম, ২৮ সেপ্টেম্বর,মঙ্গলবার,২০২১

Text

সরকার ঘোষিত চলমান লকডাউনে ঈদের তৃতীয় দিনে বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে পুলিশকে লাঞ্চিত করা হয়েছে। শুক্রবার রাতে শহরের বিমানবন্দর সড়ক (সিএসডি মোড়ে) এ ঘটনা ঘটে। নীলফামারীর সৈয়দপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক আতাউর রহমানকে লাঞ্চিত করার ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। মামলা নং-২৫।

গতকাল  শুক্রবার রাতে এসআই রেজাউল ইসলাম বাদী হয়ে সৈয়দপুর থানায় মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় ব্যবসায়ী আতিফ আলতাফ (২৬) ও আতিক আলতাফ (২৪) দুই ভাইকে আসামী করা হয়েছে।

আসামীদ্বয় সৈয়দপুর শহরের বিউটি সাইকেল ষ্টোরের মালিক বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আলতাফ হোসেনের ছেলে। তাদেরকে বর্তমানে নীলফামারী জেল হাজতে প্রেরণ করা হযেছে।

থানা সূত্রে জানা গেছে, কঠোর লকডাউনের ঈদের  প্রথম দিন শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে সৈয়দপুর বিমানবন্দর সড়কের সিএসডি মোড়ে বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালাচ্ছিলেন আতিফ আলতাফ। সরকারের বিধিনিষেধ অমান্য করে এভাবে গাড়ী চালানোয় সেখানে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা তাঁর গতিরোধ করেন। বিধিনিষেধ অমান্য করার অভিযোগে ঘটনাস্থলেই তাঁকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করা হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) রমিজ আলম তাকে ১ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে জরিমানা পরিশোধ না করেই গাড়ি নিয়ে চলে যান ব্যবসায়ী আতিফ। এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে আরেকটি গাড়ি নিয়ে প্রায় দেড় কিলোমিটার পথ ধাওয়া করে আতিফকে শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কের বিসিক শিল্পনগরীর শেখ সাদ কম্পেলেক্স এর সামনে গাড়ী গতিরোধ করে ধরে ফেলে পুলিশ। এ সময় গাড়ি থেকে নেমে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে কর্তব্যরত পরিদর্শক আতাউর রহমানের গায়ে হাত তোলেন আতিফ। পিটিয়ে তাঁর পোশাক ছিঁড়ে ফেলে।
সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসনাত খান বলেন, ভ্রাম্যমাণ আদালত অমান্য, পুলিশের গায়ে হাত তোলা ও লকডাউন ভাঙ্গার মতো একাধিক অপরাধ সংঘটিত করার কারনে মামলা দায়ের করার নির্দেশ দেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) রমিজ আলম। তাদেরকে বর্তমানে নীলফামারী জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

 ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) রমিজ আলম জানান, অভিযুক্ত ব্যাক্তির অর্থদন্ড আদেশ বহাল রয়েছে। ও সরকারি কাজে বাঁধা প্রদান এবং পুলিশের ওপর আক্রমন করার অপরাধে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছেন। চলমান লকডাউনে সরকারি বিধিনিষেধ মেনে চলার আহবান জানান।

বিষয়:

আরও পড়ুন

avertisements 2