avertisements

দশ ব্যাংকে ঘাটতি ২৯ হাজার কোটি টাকা

ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশ: ০৩:৩১ পিএম, ২ মার্চ,মঙ্গলবার,২০২১ | আপডেট: ০৯:১৩ পিএম, ২১ এপ্রিল, বুধবার,২০২১

Text

করোনার বছরে ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণ কিছুটা কমলেও মূলধন সংরক্ষণ পরিস্থিতির কোনো উন্নতি হয়নি, বরং ব্যাপক অবনতি ঘটেছে। ২০২০ সালের ডিসেম্বর শেষে সরকারি-বেসরকারি ১০টি ব্যাংক মূলধন ঘাটতিতে পড়েছে। এসব ব্যাংকের মূলধন ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে প্রায় ২৯ হাজার কোটি টাকা (২৮ হাজার ৯৫২ কোটি টাকা)।

গত সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১১ ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি ছিল ১৯ হাজার ২৯৬ কোটি টাকা। অর্থাৎ গত তিন মাসে এ ঘাটতি বেড়েছে প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা। আর ২০১৯ সালে ডিসেম্বরে ১২ ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি ছিল ২৩ হাজার ৬১২ কোটি টাকা।

নিয়ম অনুযায়ী, ব্যাংকের উদ্যোক্তাদের জোগান দেওয়া অর্থ ও মুনাফার একটি অংশ মূলধন হিসাবে সংরক্ষণ করা হয়। কোনো ব্যাংক মূলধনে ঘাটতি রেখে তার শেয়ারহোল্ডারদের লভ্যাংশ দিতে পারে না। খবর সংশ্লিষ্ট সূত্রের।

অর্থনীতিবিদরা মনে করেন, খেলাপি ঋণ আদায় না হওয়ায় মূলত এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। ঋণের গুণগত মান বাড়ানো ছাড়া মূলধন পরিস্থিতির উন্নতি হবে না। এজন্য ঋণের গুণগত মান বাড়াতে প্রথমত খেলাপি ঋণ আদায়ে জোর দিতে হবে। একই সঙ্গে নতুন ঋণ বিতরণের আগে ভালোভাবে যাচাই করে দিতে হবে। ঋণটা সঠিক খাতে ব্যবহার হচ্ছে কিনা, তা দেখতে হবে।

এছাড়া সব ধরনের অপচয় রোধ করে আয় বৃদ্ধির মাধ্যমে মূলধন পরিস্থিতির উন্নতি করতে হবে। জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, কাগজে-কলমে খেলাপি ঋণ কম দেখালেও প্রকৃত খেলাপি ঋণ তো অনেক বেশি।

বিপুল অঙ্কের ঋণ অবলোপন এবং ঋণ পুনঃতফসিল হচ্ছে। এতে বোঝা যাচ্ছে অধিকাংশ ঋণের মান ভালো না। সে কারণে নিরাপত্তা সঞ্চিতি বা প্রভিশন রাখতে হয়। এছাড়া ব্যাংকের আয়ও এখন বন্ধ। সব মিলিয়ে মূলধন ঘাটতি বাড়ছে।

আন্তর্জাতিক ব্যাসেল-৩ নীতিমালা অনুযায়ী, ঝুঁকি বিবেচনায় ব্যাংকগুলোকে নিয়মিত মূলধন সংরক্ষণ করতে হয়। বর্তমান নিয়মে একটি ব্যাংকের মোট ঝুঁকিভিত্তিক সম্পদের ১০ শতাংশ অথবা ৪০০ কোটি টাকার মধ্যে যেটি বেশি, সেটি ন্যূনতম পরিমাণ হিসাবে মূলধন রাখতে হয়। কোনো ব্যাংক এ পরিমাণ অর্থ সংরক্ষণে ব্যর্থ হলে মূলধন ঘাটতি হিসাবে বিবেচনা করা হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদনে দেখা যায়, গত বছরের ডিসেম্বর প্রান্তিকে মূলধন সংরক্ষণের এই শর্ত পূরণ করতে পারেনি ১০ ব্যাংক। এর মধ্যে রয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত ৫টি, বেসরকারি ৩টি ও বিশেষায়িত ২টি ব্যাংক। তবে এ সময়ে বেশিরভাগ ব্যাংকের মূলধন উদ্বৃত্ত থাকায় সার্বিক ব্যাংকিং খাতে মূলধন উদ্বৃত্ত রয়েছে।

সাধারণভাবে খেলাপি ঋণ বাড়লে মূলধন সংরক্ষণের প্রয়োজনীয়তা বাড়ে। তবে গত বছর খেলাপি ঋণ প্রায় সাড়ে ৫ হাজার কোটি টাকা কমেছে। জানা যায়, করোনার কারণে জানুয়ারি থেকে চলতি ডিসেম্বর পর্যন্ত কেউ কিস্তি না দিলেও তাকে খেলাপি দেখানো হয়নি।

এ সুযোগের ফলে গত বছর খেলাপি ঋণ ৫ হাজার ৫৯৭ কোটি টাকা কমে ২০২০ সালের ডিসেম্বরে দাঁড়িয়েছে ৮৮ হাজার ৭৩৪ কোটি টাকা, যা মোট বিতরণ করা ঋণের ৭ দশমিক ৬৬ শতাংশ।

বিষয়:

আরও পড়ুন

avertisements