Main Menu

সম্পাদকীয়

রোহিঙ্গাদের সমস্যা সমাধানে সকলকে সক্রিয় ও দায়িত্বশীল ভুমিকা নিতে হবে

Rohinga

প্রায় দুই মাস ধরে রাখাইন রাজ্যে মিয়ানমারের সরকারী বাহিনীর নির্মম গণহত্যা অব্যাহত থাকলেও জাতিসংঘ ও বিশ্বসম্প্রদায়ের নিরব দর্শকের ভুমিকা অব্যাহত রয়েছে। তারা শুধু রোহিঙ্গাদের জন্য বর্ডার খুলে দিয়ে মানবিক আশ্রয় দিতে একাধিকবার বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে দায়িত্ব শেষ করছে । অন্য দিকে মিয়ানমারের সরকারী বাহিনী প্রকাশ্য গণহত্যা বা এথনিক ক্লিনজিং চালিয়ে নিরস্ত্র সাধারণ দরিদ্র মানুষগুলোর বাড়িঘরে আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দিচ্ছে। যুবক ও শিশুদের ধরে বীভৎস কায়দায় নির্যাতন করে হত্যা করছে। নারীদের ধর্ষণ করার পর হত্যা করছে। মিয়ানমারের সেনারা হেলিকপ্টার গানশিপ দিয়ে রাখাইন গ্রামগুলোতে বৃষ্টির মত গুলিবর্ষণই করছে না পলায়নপর লোকদের ওপরও গুলিবর্ষণ করছে, হত্যা করছে। গণমাধ্যমগুলোর বিস্ময়কর নীরবতার মধ্যেওবিস্তারিত


ব্যবসাবান্ধব পরিবেশে নিশ্চিত করা বাংলাদেশ সরকারের দায়িত্ব

Business

বিভিন্ন  দেশের ব্যবসা পরিস্থিতি কতখানি ব্যবসাবান্ধব সে বিষয়ে বিশ্বব্যাংক সম্প্রতি একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। কোন দেশে  ব্যবসা করা কতটা কঠিন অথবা সহজ সে বিষয়টিই মূলত এ প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়। প্রতিবেদনের ১০টি মূল সূচক হলো, ব্যবসা শুরু, অবকাঠামো নির্মাণের অনুমতি, বিদ্যুতের প্রাপ্যতা, সম্পত্তি নিবন্ধন, ঋণের প্রাপ্যতা, ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের সুরক্ষা, কর পরিশোধ, বৈদেশিক বাণিজ্য, চুক্তির বাস্তবায়ন ও অসচ্ছলতা দূরীকরণ। প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, ১০টি সূচকের মধ্যে বিদ্যুৎ প্রাপ্যতায় সবচেয়ে খারাপ অবস্থানে আছে বাংলাদেশ। বিদ্যুৎ প্রাপ্যতা সূচকে বিশ্বের ১৯০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৮৭। গত বছরও বাংলাদেশের অবস্থান এ সূচকে একই ছিল। বাংলাদেশে শিল্প স্থাপনে বিদ্যুতের সংযোগ পেতে গড়ে সময় লাগে ৪২৮ দিন।বিস্তারিত


অস্ট্রেলিয়া কি সত্যিই মুসলিম দ্বারা প্লাবিত?

dsc_0126_500x300

সম্প্রতি ওয়ান ন্যাশন পার্টির নেতা সিনেটর পলিন হেনসন বলেছেন, অস্ট্রেলিয়া ‘মুসলিমে প্লাবিত’ হয়ে যাচ্ছে। তিনি আরো বলেছিলেন “আমরা আজ মুসলিম সম্প্রদায় ও সামাজিক গোষ্টীর ক্রমবর্ধমান সংখ্যায় বিপদগ্রস্হ”. তার এই মন্তব্য পরিসংখ্যান দিক কতটুক সঠিক সেটাই বর্তমান সময়ের গুরুত্ব্পূর্ণ আলোচ্য বিষয়। পরিসংখ্যান অনুযায়ী মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের জন্ম বৃদ্ধিহার অন্যান্য অমুসলিম সম্প্রদায়ের পরিপ্রেক্ষিতে বেশি হলে মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের অভিবাসন অনুপাত অন্যন্য ধর্মাবলম্বীদের অভিবাসন তুলনায় নিতান্তই কম। ২০১১ সালের আদমশুমারী রিপোর্ট অনুযায়ী অস্ট্রেলিয়ায় সমগ্র জনসংখ্যার মাএ ২.২ শতাংশ মুসলিম সম্প্রদায় আর খ্রীষ্টান ধর্মের অনুসারী ছিল প্রায় ৬১.১ শতাংশ । ২০০৬ সালের দিকে আলোকপাত করলে দেখা যায় সেই সংখ্যা শতকরা ৬৩.৯ শতাংশ থেকে ক্রমশঃ কমে ৬১.১বিস্তারিত


অন্যের সম্মানহানি করে আমরা কি অর্জন করছি?

untitled-1-copy-300x160-triangle

আমরা গভীর উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করছি গত কয়েক মাস যাবৎ সিডনিতে বসবাসকারী বাংলাদেশি কমিউনিটিতে এক আত্মঘাতি পারস্পরিক সম্মানহানির প্রতিযোগীতা শুরু হয়েছে। অবস্হা এতটাই উদ্বেগজনক যে, প্রায় প্রতিদিন সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমের যাঁতাকলে কেউ না কেউ এহেন হেনস্হার স্বীকার হচ্ছেন। জনশ্রুতি আছে যে, সিডনিতে এখন বাংলাদেশি যে কোন অনুষ্ঠানকে ব্যর্থ করার জন্য কমিউনিটির ভিতর থেকে একাধিক দল তৈরি করে অপপ্রচার চালানো হয়। এরপর অনুষ্ঠান শেষে কোন কোন আয়োজক একদিকে অনুষ্ঠানকে শতভাগ সফল দাবী করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জোরে সোরে প্রচারনা চালান। অন্যদিকে বিরোধী পক্ষরা একে দর্শকশূন্য বা ব্যর্থ অনুষ্ঠান আখ্যা দিয়ে বিভিন্ন নেতিবাচক পোষ্ট দিতে দেখা যায়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই অপ্রত্যাশিতবিস্তারিত


হাতি সমাচার

160806123417_indian_elephant_in_bd_640x360_azizurrahmanchowdhuary_nocredit

ভারতীয় একটি হাতি মনের খেয়ালে বাংলাদেশে ঢুকে পড়েছিলো। পুরো প্রশাসন তটস্থ হয়ে উঠলো। একটি বিশেষ টিম করা হলো, তারা হাতির দেখভাল করবে। তাকে যত্ন আত্তি করবে। তার যাতে প্রাণ সংশয় না হয়, সেই চেষ্টা করবে। বাংলার বুদ্ধিজীবীকুল পত্রিকায় হৃদয়বিদারক কলাম লিখে অশ্রুবর্ষণ করলেন। গ্রামের সাধারণ মানুষ প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে কলাগাছ কেটে হাতিকে খাওয়ালো। অজ্ঞান হয়ে যাওয়া হাতিকে পানির নিচ থেকে টেনে ডাঙ্গায় উঠালো। হাতিটি এখন নিরাপদে আছে। হাতির কোনো চেতনা আছে কিনা জানি না। থাকলে সে বুঝতো, বাংলাদেশের মানুষ কতটা অতিথি পরায়ন। ভারত থেকে চলে আসা একটা প্রাণীকে আমরা ফেলে দেইনি। মাথায় তুলে রেখেছি। আমাদেরও একজন কিশোরী ছিল। যাকে ভারতীয়বিস্তারিত




ADVERTISEMENT

Contact Us: 8 Offtake Street, Leppington, NSW- 2569, Australia. Phone: +61 2 96183432, E-mail: editor@banglakatha.com.au , news.banglakatha@gmail.com

ADVERTISEMENT