avertisements 2

২০ ও ২১ জুলাই অস্ট্রেলিয়াতে ঈদুল আযহা

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: ১২:০০ এএম, ১৯ জুলাই,সোমবার,২০২১ | আপডেট: ০২:১৭ পিএম, ২৫ অক্টোবর,সোমবার,২০২১

Text

সরকারের কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে আগামী ২০ ও ২১ জুলাই  পবিত্র ঈদুল আযহা পালিত হবে। তবে জনবহুল এলাকা সিডনি ও মেলবোর্নে কঠোর লকডাউনের কারনে ঈদের নামাজ হবে। এমনকি  সিডনিতে তথা নিউ সাউথ অঙ্গরাজ্যে বাড়ীতে অতিথি সমাগম নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তাই ঘরবন্দি থেকেই পালন করতে হবে ঈদ উৎসবের আনন্দ। তবে অস্ট্রেলিয়ার যে সব রাজ্যে করোনা সংক্রামন নেই সেখানে ঈদের জামাত হওয়ার কথা রয়েছে।

 অস্ট্রেলিয়ায় মুসলিমরা মূলত কোরবানির টাকা জমা দেন যার যার এলাকার মুসলিম বুচার শপ বা মাংসের দোকানে। মাংসের দোকানিরা নিয়মমাফিক শহর থেকে দূরের খামারের মাংস প্রক্রিয়াজাতকরণ কারখানায় পশু জবাই, ভাগাভাগি প্যাকেট করে নিয়ে আসেন। এরপর টাকা জমার রশিদ দেখিয়ে ঈদের ২/১ দিন পর দোকান থেকে মাংস নিয়ে আসতে হয়।অনেকে আবার বন্ধু বান্ধব বা পরিজন নিয়ে বহুদূরের কোন খামারে  গিয়ে সেখানে আগে থেকে কিনে রাখা পশু নিজেদের হাতে জবাই, কাটাকাটি করে মাংস নিয়ে আসেন। কিন্তু করোনার কঠোর বিধি নিষেধ এর কারনে এই বছর এই ভাবে কোরবানী করতে পুলিশী ঝামেলা এবং মোটা অংকের জরিমানা গুনতে হতে পারে, তাই অধিকাংশ মুসলিমদের  কাছে বুচার শপ বা মাংসের দোকানই এবারের কোরবানি করার শেষ ভরসা।

ইমাম কাউন্সিল ও মুনসাইট অনুসারীদের ঈদের দিন সম্পর্কে মতপার্থক্য থাকায় ২০ ও ২১ জুলাই অর্থ্যাৎ মঙ্গলবার ও বুধবার উভয়দিনই মুসলিম বুচার শপগুলো   কোরবানীর আয়োজন করবে জানা গেছে। 

ঈদুল আযহা  উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন, বিরোধী দলীয় নেতা এন্থনি আলবানেজী এবং নিউ সাউথ ওয়েলসের প্রিমিয়ার গ্লাডিস বারজিক্লিয়ান , অভিবাসন মন্ত্রী, অস্ট্রেলিয়ার গ্রান্ড মুফতি,  ফেডারলের ও  বিভিন্ন রাজ্যে সিনেটর, সংসদ সদস্যগন পৃথক বাণীতে মুসলিমদেরকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে ঈদ উদযাপনের আহবান ।

বিষয়: ঈদ
avertisements 2