Main Menu

ইরানের সাথে যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রের অস্থিরতা কি তেলের দাম বাড়াতে পারে?

পারস্য উপসাগরে ইরানের কর্তৃপক্ষ ব্রিটিশ পতাকাধারী তেলের ট্যাংকার আটকের পর থেকে বিশ্বব্যাপী তেলের দাম কিছুটা ওঠানামা করছে এবং আশঙ্কা করা হচ্ছে যে তেলের দাম দ্রুত বৃদ্ধি পেতে পারে।

হরমুজ প্রণালী দিয়ে তেলবাহী আন্তর্জাতিক জাহাজের যাতায়াতের নিরাপত্তার বিষয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দেয়ায় এবারের গ্রীষ্মে যুক্তরাজ্যে জ্বালানি তেলের দাম কিছুটা বাড়তি হতে পারে বলে সতর্ক করেছে মোটরযান নিয়ে কাজ করা একটি ব্রিটিশ সংস্থা 'এএ'।

যুক্তরাজ্য ইরানকে এর মধ্যে সতর্ক করেছে যে আটক করা ব্রিটিশ জাহাজ স্টেনা ইমপেরো যদি ফেরত দেয়া না হয় তাহলে 'কঠোর ' কূটনৈতিক পরিণতি ভোগ করতে হতে পারে ইরানকে। তেলের যোগান বাধাগ্রস্থ হলে গ্রাহক পর্যায়ে বিশ্বব্যাপী পেট্রোলের দাম বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

জিব্রাল্টারে ইরানি তেলের ট্যাংকার আটকের প্রতিক্রিয়ায় ব্রিটিশ পতাকাধারী একটি তেলের ট্যাংকার আটক করে ইরান

জিব্রাল্টারে ইরানি তেলের ট্যাংকার আটকের প্রতিক্রিয়ায় ব্রিটিশ পতাকাধারী একটি তেলের ট্যাংকার আটক করে ইরান
ইরান পরিস্থিতি কীভাবে তেলের দাম প্রভাবিত করতে পারে?

জিব্রাল্টারে ব্রিটিশ সৈন্যদের দ্বারা ইরানের একটি তেলের ট্যাংকার জব্দ করার প্রতিক্রিয়া হিসেবে ইরান ব্রিটিশ পতাকাবাহী তেলের ট্যাংকার স্টেনা ইমপেরো আটক করে।

এর আগে বেশ কয়েকমাস যাবত ইরান আর যুক্তরাষ্ট্র একে অপরের বিরুদ্ধে পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চলে আগ্রাসী ব্যবহারের অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগ তুলে আসছিল।

ঐ সময়ে হরমুজ প্রণালীতে ৬টি তেলের ট্যাংকারে আটকের ঘটনায় ইরানের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে বলে দাবি করা হয়, যার ফলশ্রুতিতে ঐ অঞ্চলে মার্কিন ও ব্রিটিশ নৌবাহিনীর উপস্থিতি পরিলক্ষিত হয়।

হরমুজ প্রণালী দিয়ে পৃথিবীর এক পঞ্চমাংশ তেল সরবরাহ হয়।

হরমুজ প্রণালী দিয়ে পৃথিবীর এক পঞ্চমাংশ তেল সরবরাহ হয়।

এখন এমনও আশঙ্কা করা হচ্ছে, ইরান হয়তো তাদের দক্ষিণ উপকূলে অবস্থিত হরমুজ প্রণালীই বন্ধ করে দেবে।

হরমুজ প্রণালী কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ একটি অঞ্চল, যার মাধ্যমে পারস্য উপসাগরীয় দেশগুলোর সাথে জাহাজ চলাচল কার্যত বন্ধ হয়ে যাবে।

যদি তাই হয়, তাহলে পৃথিবীর মোট তেলের মজুদের এক পঞ্চমাংশ এবং মোট প্রাকৃতিক গ্যাস মজুদের এক চতুর্থাংশের সাথে বিশ্বের সংযোগ ছিন্ন হয়ে যাবে।

অধিকাংশই মনে করেন, এই সমস্যার সম্ভাব্য সমাধান কূটনৈতিক আলোচনার মাধ্যমেই পাওয়া সম্ভব।

তবে ইরান যদি আসলেই প্রণালী বন্ধ করে দেয় (যেই হুমকি তারা এখনও দেয়নি), তাহলে তেলের দাম অনেকটা বৃদ্ধি পাবে - এরকম মন্তব্য করেছেন যুক্তরাজ্যের চেম্বার অব শিপিংয়ের প্রধান ডেভিড বালস্টন।

যুক্তরাজ্যের মোট তেলের ৫% এবং ১৩% প্রাকৃতিক গ্যাস হরমুজ প্রণালী হয়ে আসে জানিয়ে মি. বালস্টন বলেন, "হরমুজ প্রণালী বন্ধ হলে যুক্তরাজ্যে তেল ও গ্যাসের দাম যথেষ্ট পরিমাণে বৃদ্ধি পাবে।"

ইরান হরমুজ প্রণালী বন্ধ না করলে তেলের দাম খুব বেশি বৃদ্ধি পাবে না বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা

ইরান হরমুজ প্রণালী বন্ধ না করলে তেলের দাম খুব বেশি বৃদ্ধি পাবে না বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা
বর্তমানে তেলের দামের কী অবস্থা?

গত কয়েক সপ্তাহে পারস্য উপসাগরে অস্থিরতার কারণে তেলের দাম সারা বিশ্বেই কিছুটা ওঠানামা করেছে, তবে তেরের দরের এই ওঠানামা খুব একটা বেশি পরিবর্তন হয়নি বলে মন্তব্য করেছেন আলফা এনার্জি গ্রুপ কনসাল্টেন্সি নামের একটি পরামর্শ প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান জন হল।

মি. হল মনে করেন তেলের বাজারের দামে খুব বেশি পরিবর্তন না আসার একটি কারণ ইরানের বিরুদ্ধে বেশ কিছুদিন ধরে চলতে থাকা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের হুমকি, যেগুলো শেষ পর্যন্ত শুধু হুমকিই থেকে যায়। তবে পারস্য উপসাগরে অস্থিরতা বাড়লেও এবছর তেলের দামে খুব একটা পরিবর্তন হবে না বলে মনে করেন মি. হল।

যুক্তরাষ্ট্রে তেলের উৎপাদন বৃদ্ধি, চীনের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ধীরগতির হওয়ায় তাদের তেলের চাহিদা কিছুটা কমে যাওয়া - এরকম কয়েকটি কারণে এবছর বৈশ্বিক বাজারে তেলের মজুদ বেশি থাকবে, যার ফলে দাম নিয়ন্ত্রণে থাকবে।


ADVERTISEMENT

Contact Us: 8 Offtake Street, Leppington, NSW- 2569, Australia. Phone: +61 2 96183432, E-mail: editor@banglakatha.com.au , news.banglakatha@gmail.com

ADVERTISEMENT