Main Menu

পেশাজীবি সংগঠন ও তার সদস্যপদের প্রয়োজনীতা

নতুন পেশাজীবিদের জন্য

ড: নওশাদ হক, মেলবোর্ন এয়ারপোর্ট: দেশে থাকতে জানতাম না পেশাজীবি সংগঠনের সদস্যপদ গ্রহনের প্রয়োজনীতা। অষ্ট্রেলিয়া এসে ইন্সটিটিউট অফ ফরেষ্টার্স অফ অষ্ট্রেলিয়ার সাধারন সদস্য পদের আবেদন করেছিলাম। অনেক কাগজপত্র প্রমানাদি দাখিলের পর বেশ কাঠ খড় পুড়িয়ে তা পেয়েছিলামও। যদিও তেমন ব্যাবহারে আসেনি তবুও বাংলাদেশের ফরেষ্ট্রি ডিগ্রীর এখানে গ্রহনযোগ্যতা পেয়ে একরকমের মনোস্তুষ্টি পেতাম।

তারপর মাষ্টার্স ডিগ্রীর সুবাদে ব্রিটিশ ইন্সটিটিউট অফ উড সায়েন্স এর সাধারন সদস্য পদ পেয়েছিলাম। আমার বৃটিশ প্রবীন অধ্যাপকের এক আধজন ফেলো পদবী ব্যবহার করতে দেখতাম। তখন মনে হতো যদি হতে পারতাম। আমার নিউজিল্যান্ড বন গবেষনার ও অষ্ট্রেলিয়ান গবেষনাগারের সহকর্মীরা বলতো এটা অনেকটা এক্সক্লু্সিভ ক্লাবের মত। তোমাকে তাদের কাছে প্রমান করতে হবে তোমার কাজ, জ্ঞানের গভীরতা এবং বিভিন্ন ক্যাটেগরীতে অবদান দেখিয়ে।

সিডনীতে পিএইচডি শেষ করে নিউজিল্যান্ড বন গবেষনাগারে বিজ্ঞানী পদে অফার পেলে ওরা একই সাথে ইমিগ্রেশনও দিয়ে দিলো। নিউজিল্যান্ডর জীবন যাপন সুন্দর হলেও পরিবার ছোট রোটোরুয়া শহরে ঠিক মানাতে পারছিলো না। তাই আবার অষ্ট্রেলিয়া ফিরে আসার চেষ্টা করছিলাম। যাহোক পিএইচডি পরবর্তী গবেষনায় অবদানের সুবাদে ব্রিটিশ ইন্সটিটিউট অফ উড সায়েন্স এর ফেলো নির্বাচিত হয়েছিলাম সেই ২০০৫ সালে।

ইতিমধ্যে অষ্ট্রেলিয়া ইমিগ্রেশন আবেদনের জন্য আমাকে প্রফেশনাল ইন্জিনিয়ার হিসাবে আবেদন করতে হবে। অষ্ট্রেলিয়ান ইন্সটিটিউসন অফ ইন্জিনিয়ার্স এ তখন আবেদন করতে হতো সবাইকে ডিগ্রী অনুমোদনের জন্য। আমার ব্যাচেলর ডিগ্রী সায়েন্স, ইন্জিনিয়ারিং নয়। আমার পিএইচডির সময়ে আমার তত্তাবধায়ক জোর করে অনেক ইন্জিনিয়ারিং কোর্স করিয়ে পরীক্ষা নিতো। ঐ সময় টা আমার বেশ কঠিন অবস্থার মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছিলো। তারপর ইন্জিনিয়ারিং এর ছাত্রদের পড়ানোর সুযোগ পেয়েছিলাম। ভাগ্যিস সেগুলো করেছিলাম, সেজন্য কম্পিটেন্সি ডেমন্সট্রেশন রিপোর্ট তৈরী করে প্রফেশনাল ইন্জিনিয়ার ক্যাটাগরিতে সদস্যপদ পেয়েছিলাম। সময়ের ব্যবধানে পরে একসময় অষ্ট্রেলিয়ান ইন্সটিটিউসন অফ ইন্জিনিয়ার্স আমাকে ও আমার ইন্জিনিয়ার পিএইচডি ছাত্রকে আমন্ত্রণ জানিয়ে একটা বিশেষ সেমিনারের আয়োজন করেছিলো যেখানে অন্য ইন্জিনিয়াররা প্রফেশনাল উন্নয়ন ক্রেডিট এর জন্য এসেছিলো।

বিশেষজ্ঞের সংগা কি? আমার এক প্রবীন সহকর্মী বলতো যে নু্ন্যতম দশ বছর তোমাকে একই বিষয়ের উপর কাজ করতে হবে। তখন সেই বিষয়ে মতামত দিলে লোকেরা তোমাকে গুনবে। তবে যদি কোনো প্রফেশনাল সংস্থা তোমাকে ফেলো গ্রেড দেয় সেটাও হতে পারে একটা ক্রেডিবিলিটি। তাই অস্ট্রেলিয়ার ইন্সটিটিউট অফ মাইনিং ও মেটালার্জি তে আবেদন করেছিলাম। ওদের অনেক রিকয়ারমেন্টস্ ছিলো আর পন্চাশ বছরের নীচে কাওকে ফেলোশিপ দিতে চায় না। যাহোক আমার ওই শিল্পে গবেষনার অবদান, বড় দল ও বাজেট ব্যাবস্থাপনার অভিজ্ঞতা, পিএইচডি ছাত্র তত্ত্বাবধানের অভিজ্ঞতা, লম্বা সময়ের মিনারেল প্রসেসিং পড়ানোর অভিজ্ঞতা মিলিয়ে দিয়ে দিলো। এরকম গ্রহনযোগ্যতা পেয়ে ভালোই সন্তুষ্টি পেতাম। আমার পিএইচডি ও পরবর্তী সময়ে শক্তির বিভিন্ন বিষয়ে গবেষনার সুযোগ পেয়েছি। শুধু অফিসিয়ালী আবেদন করিনি কখনো। তাই আমার অষ্ট্রেলিয়ার ইন্সটিটিউট অফ এনার্জি তে ফেলোশিপ পাওয়া কঠিন হওয়ার কথা ছিলো না।

এখন অষ্ট্রেলিয়ান ইন্সটিটিউসন অফ ইন্জিনিয়ার্স এ আবেদন করলে আশা করি খুব সমস্যা হবে না। তবে আপাতত একটু প্রায়োরিটাইজ করি। অষ্ট্রেলিয়ান একাডেমি অফ সায়েন্সের ফেলো খুবই সম্মানজনক এবং মোটেও সহজ নয়।

যদিও সনদগুলো একধরনের স্বীকৃতি দেয় বিশেষজ্ঞ দলে ঢোকার জন্য কিন্তু তা মোটেও জ্ঞানের গভীরতার পরিচয় নয়। যারা নতুন প্রফেশনাল কেরিয়ার শুরু করেছেন বা করেছো, তাদের বলি চলমান শিক্ষার কোনো বিকল্প নেই। আমরা বলি চার বছরের ডিগ্রী দশ ভাগ রসদ আর চাকরিতে ঢোকার টিকেট দেয় আর বাকী নব্বই ভাগ চাকরী করতে গিয়ে অভিজ্ঞতার মাধ্যমে সারাজীবন শিখতে হয়।

সব চাকুরী দাতারা সব গুন ও জ্ঞান একজনের মধ্যেই পেতে চায়। এজন্য দরকার হয় নিজেকে ওরকম যতটা সম্ভব তৈরি করতে। নিজের দক্ষতা ‘টি’ অক্ষরের আদলে তৈরি করতে, যেমন গভীরতা লম্বায় তেমন আড়ে যেন বিগ পিকচার সম্পর্কে ধারনা থাকে। সেটাতো আর ক্লাসে হয়না, তার জন্য দরকার ফোকাস নির্ধারণ করে সেল্ফ স্টাডি। চাকরির জন্য টেকনিকাল দক্ষতা ছাড়াও অন্যান্য সফ্ট্ স্কিল, নেতৃত্ব, সমস্যা সমাধান, আশপাশ পর্যবেক্ষন ক্ষমতা এবং সিদ্ধান্ত গ্রহন, স্বকীয় চিন্তাশীলতা, আবেগ নিয়ন্ত্রন ক্ষমতা, দলে কাজের খাপ খাওয়ানো আরো কত কিছু। এটা আমার রিক্রুটমেন্ট প্যানেল তৈরি, চেয়ার করা, সে দলের সদস্য হিসেবে পরীক্ষা নেয়ার অভিজ্ঞতা থেকে শেয়ার করলাম।

বিদেশে এসে প্রতিষ্ঠা ও ভালো চাকুরী করতে চাইলে অনুজদের বলবো পেশাজীবি সংগঠন সম্পর্কে জানতে ও সদস্য পদ গ্রহনের কথা ভেবে দেখতে। ধন্যবাদ সবাইকে।


ADVERTISEMENT

Contact Us: 8 Offtake Street, Leppington, NSW- 2569, Australia. Phone: +61 2 96183432, E-mail: editor@banglakatha.com.au , news.banglakatha@gmail.com

ADVERTISEMENT