Main Menu

শিল্প সাহিত্য

কবি বিদ্যুৎ ভৌমিকের পরিচিতি ও ছবি

bidut

কবি বিদ্যুৎ ভৌমিকের এই সময়ের একগুচ্ছ কবিতামালা ¤ ****************************************** কবি পরিচিতিঃ ************* [ এই সময়ের দুই বাংলার জনপ্রিয় কবি বিদ্যুৎ ভৌমিক । জন্ম ১৯৬৪ সন, ১৬ – ই জুন, ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে হুগলি জেলা তারই একটি ঐতিহাসিক শহর শ্রীরামপুরে । পিতা ঈঁশ্বর পীযূষ কান্তি ভৌমিক । মাতা শ্রীমতি ছায়ারানী ভৌমিক । একমাত্র কবিতাকেই উপজীব্য করে  ভারত ও বাংলাদেশের পাঠকবন্ধুদের কাছে তিনি আদর ও সন্মান পেয়ে চলেছেন । প্রায় ৩০ – ৩৫ বছর ধরে নিয়মিত ভাবে প্রথম শ্রেণীর বেশির ভাগ পত্র পত্রিকায় লিখে চলেছেন – কবিতা । *********************************************** ¤ কবি বিদ্যুৎ ভৌমিকের কাব্যগ্রন্থ ¤      ******************* কবি বিদ্যুৎ – এর কাব্যগ্রন্থবিস্তারিত



বাল্য স্মৃতি ( পর্ব-১৭)

sontosh-roy

ডঃ সন্তোষ রায়:   আগেই বলেছি পঞ্চম শ্রেণীতে পড়া অবস্থায় বর্ষাকালে শুরু হয়েছিল নাবী বন্যা। স্কুল বেশ কিছুদিন বন্ধ থাকাতে আমরা প্রায় গৃহবন্দী জীবন যাপন করতাম। বন্যার স্রোতে কাঁচা পায়খানা ও শুকনা জমি ডুবে যাওয়াতে বাড়ি সংলগ্ন বাঁশ ঝারের সাথে দুটি বড় বড় বাঁশ ফেলে জলের উপরেই প্রক্রিতির ডাকে সারা দিতে হত। আর খাওয়া দাওয়াও ছিল স্বল্প। আর এ সুযোগে গাছের পেয়ারাগুলি সাবার করতাম। আমাদের বাড়ির সাম্নেই ছিল শ্রিমন্তদের খুব ভাল জাতের পেয়ারাগাছ যা কিনা হেলে গিয়ে একবারে বন্যার জলের সংলগ্ন হয়ে গিয়েছিল। আমাদের বারান্দা থেকে ডাসা ডাসা পেয়ারা দেখে সাঁতরে গেলাম পেয়ারা তুলতে।কোমরে বাধা গামছায় মাত্র কয়েকটি পেয়ারা ঢুকিয়েছি এমনবিস্তারিত


ইটচাপা ঘাস

ishrat-jahan-urmi-20170913175918

পাখির পরণে ছোট জিন্সের প্যান্ট আর বড় ঢোলা গেঞ্জি। চুল চূড়া করে বাঁধা। এই প্যান্টগুলোকে নাকি হট প্যান্ট বলে। বলিউডের নায়িকা দীপিকা পাড়ুকোন নাকি এই প্যান্টকে জনপ্রিয় করেছে। তা করুক। বিভাবরীর অস্বস্তি হয় পাখিকে এই পোশাকে দেখে। তার মধ্যবিত্তিয় চোখ ধাক্কা খায়। অফিসের কাজে বিদেশ গিয়ে এরকম পোশাক পরা টিনএজার মেয়ে দেখে অবশ্য তার কখনো অস্বস্তি হয়নি। পাখি মানে সানজানা শ্রাবন্তীর একহাতে একটা জার্নাল ধরা আরেক হাতে কাটা চামচে সে সবজি খুঁটে খাচ্ছে। রাতের খাবার। খেতে খেতেই হঠাৎ গলা তোলে, : মাছের কি হয়েছে? জন্ডিস নাকি? এইসব ঘোড়ার ডিম প্রত্যেকদিন রাঁধো… সালমা কাছেই কাজ করছিল। সে একটু সচকিত হয়ে জোরেবিস্তারিত


ড. আব্দুর রহমান সিদ্দিকী

কাঁদো নাফ কাঁদো

poem-20170911183849

শত শ্বাপদের আপদে ভরা চৌদিকে গহীন বন-বাদার নেই কোন এমন আদম সন্তান ও জমিনে নির্ভয়ে রাখে পা তার সুদূর প্রাসাদের শান-শৌকত ঝলমল আর সিপাহীদের সদম্ভ কোলাহল কিংবা কোন আলো- পৌঁছেনি যেথা সেই নিস্তব্ধ ভূভাগ-নিবিড় বনাঞ্চল কেবল নীরবে বয়ে যায় তারে ছুঁয়ে যায় দূরন্ত নাফ নদী উত্তাল সাগর পানে নোঙ্গর ফেলেছিল তারই কোনখানে হাজার সাল আগে আরব-বণিক বহর থামিয়ে দিয়ে বহুদূরের সফর আজানের ধ্বনিতে তাদের সুমধুর টুটে যায় তাবৎ আঁধার। সহস্র বছরের শ্রমে ঘামে আবাদী হলো সেই বনভূমি পতিত জমিন দুর্গম পাহাড় জঙ্গল যত, সবুজ শস্যক্ষেত্র থেকে ধ্বনি উঠে ‘আল্লাহু আকবর’। দিকে দিকে গড়ে ওঠে জনপদ- মসজিদ মক্তব খানকাহ্ বেশুমার জমজমাটবিস্তারিত




ADVERTISEMENT

Contact Us: 8 Offtake Street, Leppington, NSW- 2569, Australia. Phone: +61 2 96183432, E-mail: editor@banglakatha.com.au , news.banglakatha@gmail.com

ADVERTISEMENT