Main Menu

রান্নাঘর


গুড়ের পায়েস তৈরির সহজ রেসিপি

gurer-payesh20170110145749

মিষ্টিজাতীয় খাবারের মধ্যে পায়েসের জনপ্রিয়তা সবচেয়ে বেশি। আর শীতের এই সময়ে বিভিন্নরকম পিঠার পাশাপাশি গুড়ের পায়েস না হলে যেন জমেই না। খুব সহজেই তৈরি করতে পারেন সুস্বাদু এই গুড়ের পায়েস। রইলো রেসিপি- উপকরণ : পোলাওয়ের চাল আধা কাপ (ভেজানো), দুধ এক লিটার, খেজুরের গুড় ৪০০ গ্রাম, নারকেল কোরা ১ কাপ, তেজপাতা ২টি, দারচিনি ২ টুকরো, কিশমিশ ১ টেবিল-চামচ, বাদাম কুচি ১ টেবিল-চামচ, লবণ খুব সামান্য, পানি পরিমাণমতো। প্রণালি : দুধ ফুটিয়ে এক লিটার থেকে ঘন করে আধা লিটার করতে হবে। গুড় এক কাপ পানি দিয়ে ফুটিয়ে ছেঁকে নিতে হবে। চাল ধুয়ে তিন কাপ পানি দিয়ে তাতে তেজপাতা, দারচিনি, লবণ দিয়েবিস্তারিত


কিভাবে গোশত সংরক্ষণ করবেন

151054_134

সঠিকভাবে সংরক্ষণ না করতে পারলে গোশত নষ্ট হয়ে যেতে পারে। জানতে হবে স্বাস্থ্যসম্মতভাবে কী করে গোশত সংরক্ষণ করা যায়। গোশত ফ্রিজে রাখার সময় অবশ্যই ভালো করে ধুয়ে রাখবেন, রক্ত যেন না ঝরে। গোশতে লবণ, ভিনেগার মিশিয়েও রাখতে পারেন। ফ্রিজে গোশত না রাখলে বাইরে বড় হাঁড়িতে সামান্য মসলা মাখিয়ে, তেল দিয়ে চুলায় রান্না করুন। আর অবশ্যই তা প্রতিদিন গরম করুন একবার করে। কড়া রোদে গোশত শুকিয়ে আর্দ্রতা কমিয়েও সংরক্ষণ করতে পারেন। ফ্রিজে রাখার আগে গোশত বাইরে ৩-৪ ঘণ্টা রেখে দিন। ধুয়ে পানি ঝরিয়ে বড় পলিথিনে ভরে ফ্রিজের ডিপে রাখতে হবে। গোশত ঘরে আনার ৮-১০ ঘণ্টা পর লবণপানিতে ফুটিয়ে রাখলে গোশত ভালোবিস্তারিত


দুধ কি প্রতিদিনই খাবেন?

178388_188

‘‌দুধ না খেলে হবে না ভালো ছেলে’‌। মায়ের মুখে শোনা কথাটাই যখন গান হয়ে যায় তখন আর বিষয়টিকে হেলফেলা করা যায় না। বাস্তবিকই দুধে রয়েছে এত প্রয়োজনীয় উপাদান যে পুষ্টিবিদরা বলছেন, দুধকে কখনও ‘‌না’‌ বলবেন না। ❏ ‌অনেকেই ‘‌খারাপ খেতে’‌ বলে দুধ পছন্দ করেন না। তবে পরীক্ষায় প্রমাণিত দুধের মতো পুষ্টিকর পানীয় আর নেই। শুধু শিশুদের নয়, প্রাপ্ত বয়স্কদেরও দুধ খাওয়া দরকার। ❏ ‌হাড় গঠনের অন্যতম উপাদান ক্যালসিয়াম। সেই ক্যালসিয়ামে ভরপুর দুধ। যারা শিশু বয়সে দুধ খান বয়স কালেও তাদের হাড় ভালো থাকে। দুধে রয়েছে ভিটামিন ডি। ক্যালসিয়াম শুষে নিয়ে হাড়ের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। ❏ দাঁতের ক্ষয় রোধ করতে পারেবিস্তারিত


রান্নাঘর পরিস্কার রাখার ১০টি টিপস

kitchen_500x300

বাথরুমের পর রান্নাঘরই হচ্ছে গৃহের সেই স্থান, যা নোংরা হয় সবচাইতে বেশী। বিশেষ করে যাদের বাড়িতে গৃহকর্মী নেই, সকল কাজ নিজেকেই করতে হয়, তাঁদের জন্য রান্নাঘর ঝকঝকে তকতকে রাখা আসলেই ভীষণ কষ্টকর একটি কাজ। কেননা তেল, ময়লা, চিটচিটে ভাব আর দুর্গন্ধের সমস্যা এই রান্নাঘরেই যে হয় সবচাইতে বেশী! আবার পরিষ্কার রাখা ছাড়া উপায়ও নেই, কেননা এই রান্নাঘরের ওপরেই নির্ভর করে বাড়ির সকলের স্বাস্থ্য। কী করবেন? জেনে নিন এমন কিছু দারুণ টিপস, যেগুলো মেনে চললে বিনা কষ্টের আপনার রান্নাঘোর থাকবে পরিষ্কার। কাজ করবেন ঠিকই, কিন্তু নোংরা হবে না মোটেও। আর নোংরা না হলে পরিষ্কারের ঝামেলাও নেই! ১) রান্নাঘর সবচাইতে বেশী নোংরাবিস্তারিত




ADVERTISEMENT

Contact Us: 8 Offtake Street, Leppington, NSW- 2569, Australia. Phone: +61 2 96183432, E-mail: editor@banglakatha.com.au , news.banglakatha@gmail.com

ADVERTISEMENT