Main Menu

৩০ টাকায় ঢাকার রাস্তায় নৌকা ভ্রমণ!

boat journey

মাত্র ৩০ টাকায় রাজধানীর সড়কে নৌকায় ভ্রমণ! তবে সেটা শখে নয়, অনেকটা বাধ্য হয়ে। গত তিনদিনের বৃষ্টিতে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা তলিয়ে গেছে।

প্রধান সড়ক ডুবে পানি ঢুকে পড়ে বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায়। সাধারণ মানুষের চলাচলে সৃষ্টি হয় ব্যাপক দুর্ভোগের। রাস্তায় আজ বাসসহ অন্যান্য যানবাহন ছিল তুলনামূলক কম। খুব প্রয়োজন ছাড়া লোকজন ঘর থেকে বের হয়নি। যারা বের হয়, শুরুতেই তাদের পড়তে হয় অতিরিক্ত রিকশাভাড়ার কবলে। অল্প কিছু সিএনজিচালিত অটোরিকশা চলাচল করলেও চালকরা হাঁকেন অতিরিক্ত ভাড়া। কাজ শেষে ঘরে ফিরতেও পোহাতে হয় ব্যাপক দুর্ভোগ।

শনিবার বেলা ৩টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত পুরান ঢাকা, মতিঝিল, আরামবাগ, পল্টন, মিরপুরসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে এমন চিত্র।

বাড়তি ভাড়া রিকশায়

বাসের সংখ্যা কম থাকার কারণে সাধারণ মানুষজন ঘরে ফেরার জন্য বেছে নেয় রিকশা। কিন্তু অন্যান্য দিনের চেয়ে আজ রিকশাভাড়া ছিল প্রায় তিনগুণ। বাধ্য হয়েই রিকশায় যেতে হয় লোকজনকে। যদিও এই রিকশায় চড়ে স্বস্তিতে ছিল না তারা। কারণ রিকশার প্রায় অর্ধেকই ছিল পানির নিচে। অনেককে পা ওপরে তুলে রিকশার সিটে বসতে হয়েছে। সেই সঙ্গে সব সময় ছিল আতঙ্কে, কখন যে কোনো গর্ত বা ম্যানহোলে পড়তে হয়।

আরিফ হোসেন পল্টন এলাকায় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন। অফিসে শেষে ফকিরাপুলের বাসায় যাচ্ছিলেন রিকশায় করে। বললেন, সাধারণত পল্টন থেকে ফকিরাপুলের রিকশাভাড়া ৩০ টাকা। কিন্তু আজ তাঁকে যেতে হচ্ছে ১০০ টাকায়। তবু ভয়ে আছেন কোনো গর্ত বা ম্যানহোলে পড়ে যান কি না।

মাঝরাস্তায় বন্ধ হচ্ছে সিএনজি

বাস বা রিকশা রেখে যারা সিএনজিচালিত অটোরিকশার ওপর ভরসা করে গন্তব্যে রওনা হয় তাদের পড়তে হয় আরো বিড়ম্বনায়। রাস্তায় জলাবদ্ধতার কারণে অটোরিকশার প্রায় অর্ধেক ছিল পানিতে। বেশ কিছু অটোরিকশা বন্ধ হয়ে পড়ে থাকে মাঝরাস্তায়। ফলে ভোগান্তিতে পড়েন চালক ও যাত্রীরা।

বাধ্য হয়ে ৩০ টাকায় নৌকা ভ্রমণ

অনেকে কর্মস্থলে যাওয়ার জন্য বা ঘরে ফেরার জন্য যানবাহন হিসেবে উঠে পড়েন নৌকায়। পুরান ঢাকা, মতিঝিল ও মিরপুর এলাকায় নৌকায় করে যাত্রী পারাপার করতে দেখা গেছে।

বিকেলে মিরপুরের কাজীপাড়ায় গিয়ে দেখা যায়, কাজীপাড়া থেকে মিরপুর ১০ নম্বর সেকশন যাওয়ার জন্য বাস, রিকশা ও অটোরিকশার পাশাপাশি প্রধান সড়কেই চলছে নৌকা। এসব নৌকায় পাঁচ থেকে ছয়জন করে যাত্রী তোলেন চালকরা। কাজীপাড়া থেকে মিরপুর ১০ নম্বরে যাওয়ার জন্য প্রত্যেক যাত্রীকে দিতে হয় ৩০ টাকা ভাড়া। আবার পাড়া বা মহল্লার গলিতে এক গলি থেকে অন্য গলিতে যাওয়ার জন্য ১০ টাকা থেকে শুরু করে ১০০ টাকা পর্যন্ত ভাড়া গুনতে হয় সাধারণ লোকজনকে।

মহসিন নামের এক নৌকার যাত্রী জানান, তিনি আগারগাঁওয়ে একটি ব্যক্তিগত কাজের জন্য গিয়েছিলেন। সারা দিন বৃষ্টির কারণে রাস্তায় পানি জমে গেছে। অনেক চেষ্টা করেও বাস বা সিএনজিচালিত অটোরিকশা কিছুই পাননি। এরপর হেঁটে হেঁটে কাজীপাড়া পর্যন্ত আসেন। এরপর রাস্তায় হাঁটুর ওপর পানি থাকায় আর এগুতে পারেননি। তখন পান এই নৌকা। অনেকটা বাধ্য হয়ে নৌকায় উঠতে হলেও ভালো লাগছে তাঁর। কারণ নৌকায় ভ্রমণ করতে হলে বুড়িগঙ্গা বা তুরাগ নদে যেতে হয়। সেখানে আবার ২০০ টাকা ঘণ্টায় নৌকায় ভ্রমণ করতে হয়। কিন্তু ঢাকার রাস্তায় ৩০ টাকায় নৌকায় যেতে পেরে অনেকটা আনন্দিত তিনি।

 

Share Button


(পরবর্তী খবর) »





ADVERTISEMENT

Contact Us: 8 Offtake Street, Leppington, NSW- 2569, Australia. Phone: +61 2 96183432, E-mail: editor@banglakatha.com.au , news.banglakatha@gmail.com

ADVERTISEMENT