Main Menu

সিনেমায় নয়, বাস্তব জীবনেই আয়নাবাজি গল্পের নায়ক সিলেটের ভুট্টোকে নিয়ে তোলপাড়!

aynabaji

রুপালী পর্দায় নয়, বাস্তব জীবনে ঠিক যেন আয়নাবাজি সিনেমার গল্পের সাথে মিলে যায় সিলেটের এক ব্যক্তির গল্প!  যাবজ্জীবন সাজা নিয়ে মূল আসামির বদলে জেল খাটছেন রিপন আহমদ ভুট্টো নামের এক ব্যক্তি। আইনের চোখ ফাঁকি দিয়ে  নিজের অপরাধের নিশ্চিত শাস্তি জেল খাটার বদলে অন্য একজনকে ‘সমঝোতার’ ভিত্তিতে জেলে সাজা খাটতে পাঠান মুল আসামী ! ‘চুক্তি ছিলো’ অল্প সময়ের মধ্যে জেল থেকে ছাড়িয়ে নেবেন ভুট্টোকে। এই চুক্তিতেই মূল আসামি (বর্তমানে সৌদি প্রবাসী)র ‘প্রক্সি’ দিয়েছিলেন  বাস্তবের আয়নাবাজির এই চরিত্র।

কিন্তু ‘বিধি বাম’ ! সম্প্রতি মুক্তি পাওয়া ব্যপক আলোচিত ‘আয়নাবাজি’ চলচ্চিত্রের প্রধান চরিত্র সরাফত করিম আয়নার চরিত্রের সাথে মিল থাকা বাস্তবের ভুট্টো এখনো কারাগারে আছেন। এক বছরেরও বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও কারাগার থেকে বের হওয়া হয়নি ভুট্টোর। বিভিন্ন গণমাধ্যমে বিষয়টি প্রকাশিত হওয়ার পর থেকে ভুট্টোকে নিয়ে চলছে তোলপাড়।

সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে যাবজ্জীবন সাজার আসামি হয়ে প্রক্সি দিতে গিয়ে কারাগারে বন্দি হয়েছিলেন রিপন আহমদ ভুট্টো। আসামীপক্ষের যোগসাজশে ঘটনাটি ঘটলেও তিনি এখন মুক্তির জন্য ব্যাকুল। একই সঙ্গে যারা তাকে ‘সমঝোতার’ মাধ্যমে যারা কারাগারে পাঠিয়েছে, তাদেরও বিচার দাবি করেছেন তিনি।

কারাসূত্র জানিয়েছে, জেল থেকে বের হওয়ার জন্য ভুট্টো পাগলপারা। ভুট্টো দাবি করছেন, তিনি নিজে নির্দোষ। তিনি প্রতারণার শিকার। ট্রাক চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করছিলেন। তিনি বুঝতেই পারেননি, আসলে কি ঘটেছে। তিনি আর অন্যের অপরাধের দায় মাথায় নিয়ে কারাগারের ঘানি টানতে চান না। সরকারের সহযোগিতায় বেরিয়ে আসতে চান। একই সঙ্গে প্রকৃত আসামির শাস্তি চান।

সম্প্রতি বিভিন্ন গণমাধ্যমে বিষয়টি প্রকাশের পর নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। তার মুক্তির বিষয়ে সিলেটের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কাজী আব্দুল হান্নান ও যুগ্ম জেলা জজ মো. রেজাউল করিমের সমন্বয়ে দুই সদস্যের তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে। এছাড়া কারা কর্তৃপক্ষও ভুট্টোকে মামলা থেকে অব্যাহতি দিতে জেলা ও দায়রা জজ আদালতে আবেদন জানিয়েছে।

সিলেটের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু সাফাত মো. সাহেদুল ইসলাম গনমাধ্যমকে জানান, একজনের পরিবর্তে অন্যজনের কারাভোগের বিষয়ে ‘জুডিশিয়াল ইনকুয়ারি’র সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এ লক্ষ্যে দুই সদস্যের কমিটি গঠন হয়েছে। রোববার থেকে তদন্ত কমিটি তদন্ত কাজ শুরু করবে। কমিটিকে তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করতে হবে।

এদিকে শনিবার বেলা আড়াইটায় সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার পরিদর্শন করে কারাবন্দি ভুট্টোর সাথে কথা বলেছেন তদন্ত কমিটির সদস্য সিলেটের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কাজী আব্দুল হান্নান। বিষয়টি জানিয়েছেন সিলেটের সিনিয়র জেল সুপার মো. সগির মিয়া।

মামলার নথিসুত্র ও ভুট্টোর জবানবন্দীতে  জানা গেছে, সিলেটের সদর উপজেলার মোগলগাঁও ইউনিয়নের চানপুর গ্রামের আলোচিত আলী আকবর সুমন হত্যা মামলার আসামি সেজে জেল খাটছেন ভুট্টো। তিনি নগরীর ৬নং ওয়ার্ডের সৈয়দ মুগনী তরঙ্গ আবাসিক এলাকার বাসিন্দা। মূল সাজাপ্রাপ্ত আসামি ইকবাল হোসেন বকুল বর্তমানে সৌদি আরবে পালিয়ে রয়েছেন বলে তার পরিবারিক সূত্রে জানা গেছে।

এ ব্যাপারে নিহত সুমনের ছোট ভাই ও মামলার বাদী আলী আহসান সুমন জানান, যে তিনজনের যাবজ্জীবন সাজা হয়েছিল, তারা সবাই পলাতক রয়েছেন বলে আমরা জানি। এর বেশি কিছু জানি না। তবে আমরা সুমনের প্রকৃত হত্যাকারীর শাস্তি চাই।

উল্লেখ্য, সিলেট নগরী থেকে বাড়ি ফেরার পথে ২০০৯ সালের ২ সেপ্টেম্বর নিখোঁজ হন আলী আকবর সুমন (২৪)। পরের দিন মোগলগাঁও ইউনিয়নের হাউসা গ্রামের পাশে ঝিলকার হাওরে কচুরিপানার নিচে তার মরদেহ পাওয়া যায়।

aynabaji-ripon-vutto
বাস্তবের আয়নাবাজ রিপন আহমদ ভুট্টো

এ ঘটনায় কোতোয়ালি থানায় নিহতের ছোট ভাই আলী আহসান সুহেল বাদী হয়ে মামলা করেন। ২০১২ সালের ২০ জুন আলোচিত ওই মামলার রায়ে চার্জশিটভুক্ত ৯ আসামির মধ্যে তিনজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন আদালত।

সাজাপ্রাপ্তরা হলেন হাউসা গ্রামের মৃত মছকন্দর আলীর ছেলে দরাছ মিয়া ওরফে গয়াছ ও তার স্ত্রী রুজিনা বেগম এবং একই গ্রামের আবদুল মতিনের ছেলে মো. ইকবাল হোসেন বকুল। অবশ্য বাকি আসামিদের খালাস দেয়া হয়। সাজাপ্রাপ্ত তিন আসামিই পলাতক ছিলেন।

বছরখানেক আগে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি বকুলের পরিবর্তে আদালতে আত্মসমর্পণ নিয়েই ভুট্টো ও বকুল নাটকের শুরু। সুমন হত্যা মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামি বকুল ২০১৫ সালের ১১ অক্টোবর আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। এরপর থেকে তিনি কারাগারেই রয়েছেন। তবে আত্মসমর্পণের ১ বছর ২ মাস পর বেরিয়ে আসে ভুট্টোর প্রকৃত পরিচয়। আর মূল আসামি ইকবাল হোসেন বকুল বর্তমানে মধ্যপ্রাচ্যে রয়েছেন।-সময়ের কন্ঠস্বর

Share Button







ADVERTISEMENT

Contact Us: 8 Offtake Street, Leppington, NSW- 2569, Australia. Phone: +61 2 96183432, E-mail: editor@banglakatha.com.au , news.banglakatha@gmail.com

ADVERTISEMENT