Main Menu

মানুস দ্বীপে অস্ট্রেলিয়ার আশ্রয় শিবিরে পাপুয়া পুলিশের হামলা

Manus-Island

পাপুয়া নিউগিনির মানুস দ্বীপে একটি শরণার্থী শিবির থেকে আশ্রয়প্রার্থীদের অন্যত্র সরিয়ে নিতে অভিযান চালিয়েছে পুলিশ৷ গত তিন সপ্তাহ ধরে সেখানে পানি, খাবার ও বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করে দেয়ায় মানবিক বিপর্যয়ের আশংকা রয়েছে৷

পাপুয়া নিউগিনির কর্তৃপক্ষ মানুস দ্বীপের শরণার্থী শিবির থেকে অন্তত চারশ’ আশ্রয়প্রার্থীকে পার্শ্ববর্তী দ্বীপে সরিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছে৷ তবে পাপুয়ার এই শরণার্থীদের জন্য অর্থ দিয়ে থাকে অস্ট্রেলিয়া৷ দেশটির বিতর্কিত শরণার্থী নীতির কারণে তারা নিজের দেশে শরণার্থীদের আশ্রয় দিতে পারে না৷

পাপুয়ার পুলিশ প্রধান বলেছেন, বৃহস্পতিবার সকালে ৫০ জন পুলিশ এবং অভিবাসন কর্মকর্তারা ক্যাম্পে প্রবেশ করে এবং ৩৭৮ জন শরণার্থীর মধ্যে মাত্র ৩৫ জনকে বাসে করে অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যায়৷

মানুস দ্বীপের আশ্রয় প্রার্থীদের অভিযোগ, পুলিশ তাদেরকে সরিয়ে নেয়ার জন্য তাদের উপর বল প্রয়োগ করেছে৷ সেখানে তিন সপ্তাহ আগে থেকে পানি, বিদ্যুৎ ও খাদ্য সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ৷ মানবাধিকার সংগঠনগুলো এবং জাতিসংঘ সেখানে সহিংসতা এবং মানবিক সংকটের আশংকা করছে৷

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, শরণার্থী শিবির থেকে অনেককে আটক করা হয়েছে, এর মধ্যে আছেন ইরানি সাংবাদিক ও শরণার্থী বেহরোজ বুখানি, যিনি বরাবরই এই আশ্রয় শিবিরের শরণার্থীদের অধিকারের জন্য সোচ্চার৷ গ্রেপ্তারের আগে তিনি একটি টুইট করেছিলেন, যেখানে বলা হয়েছিল পুলিশ তাঁদের যাবতীয় জিনিসপত্র নষ্ট করে ফেলছে৷ বন্ধ করে দিয়েছে পানি, বিদ্যুৎ ও খাবার সরবরাহ৷

তবে পাপুয়ার পুলিশ এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছে, তাঁদের উপর কোনো রকম বল প্রয়োগ করা হয়নি৷ অস্ট্রেলিয়ার কঠোর শরণার্থী আইনের জের ধরে এই আশ্রয়প্রার্থীদের মানুস দ্বীপে রাখা হয়েছে৷ সেই আইনে বলা হয়েছে, নদীপথে অর্থাৎ নৌকায় করে যারা দেশে ঢুকবে, তাদের সে দেশে থাকতে দেয়া হবে না৷ জাতিসংঘ এবং মানবাধিকার সংস্থাগুলো বরাবরই অস্ট্রেলিয়ার এই শরণার্থী আইনের বিরোধিতা করে আসছে৷

মানুস শরণার্থী শিবিরে আশ্রয়প্রার্থীদের জীবনযাপন অমানবিক উল্লেখ করে গত বছর পাপুয়া নিউ গিনি’র সুপ্রিম কোর্ট একে অবৈধ ঘোষণা করে এবং অস্ট্রেলিয়ার সরকারের কাছে এটি বন্ধের আহ্বান জানায়৷ মানুস ক্যাম্পের শরণার্থীদের বেশিরভাগই এসেছেন আফগানিস্তান, পাকিস্তান, মিয়ানমার, ইরান, শ্রীলংকা এবং সিরিয়া থেকে৷ সুপ্রিমকোর্টের এই আদেশের প্রতিবাদ স্বরূপ অন্তত চারশ’ আশ্রয়প্রার্থী ৩১ শে অক্টোবর থেকে ঐ শরণার্থী শিবিরে স্বেচ্ছা বন্দি অবস্থায় রয়েছেন৷ তাঁদের আশংকা, অন্য দ্বীপে তাঁদের সরিয়ে নেয়া হলে সেখানে বন্দি জীবন যাপন করতে হবে৷

গত সপ্তাহেই আশ্রয়কেন্দ্রে ওষুধের মজুদ শেষ হয়ে গেছে৷ আর্দ্র আবহাওয়ায় এবং প্রচণ্ড গরমে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়েছেন৷ পানির অভাবে সেখানে কুয়া খুঁড়তে শুরু করেছেন তারা৷ জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থার একজন প্রতিনিধি জানিয়েছেন, দিন দিন এখানকার পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে৷ অস্ট্রেলিয়ার উচিত এই আশ্রয়প্রার্থীদের দায়িত্ব নেয়া এবং অবিলম্বে সংকট সমাধানে এগিয়ে আসা৷

তবে অস্ট্রেলিয়া সরকার অটল৷ নদীপথে শরণার্থীদের বিদেশে আসতে গিয়ে মৃত্যুর ঘটনা এবং মানবপাচার রোধে তাদের এই শক্ত অবস্থান৷ অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী ম্যালকম টার্নবুল বলেছেন, ‘‘পাপুয়া নিউগিনি এই শরণার্থীদের উপর খারাপ ব্যবহার করছে, যাতে আমরা তাদের আশ্রয় দিতে বাধ্য হই৷ কিন্তু আমরা আমাদের শরণার্থী নীতি কখনোই লঙ্ঘন করবো না৷ মানুস -এর শরণার্থী শিবিরের আশ্রয় প্রার্থীদের বিকল্প নিরাপদ স্থানে নিয়ে যেতে হবে, যেখানে সব ধরণের সুযোগ-সুবিধা রয়েছে৷’’

Share Button







ADVERTISEMENT

Contact Us: 8 Offtake Street, Leppington, NSW- 2569, Australia. Phone: +61 2 96183432, E-mail: editor@banglakatha.com.au , news.banglakatha@gmail.com

ADVERTISEMENT