Main Menu

বিটিভি দেখার জন্যে আমার টেলিভিশনের দরকার নেইঃ খালেদা জিয়া

BTV

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে পুরান ঢাকার নাজিম উদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারের অফিস ভবন থেকে ডে কেয়ার সেন্টারে নেয়ার পর কারা কর্তৃপক্ষ তার রুমে একটি টেলিভশন দিতে চেয়েছিল। কিন্তু তিনি সেটা নেননি। কারণ, তাকে টেলিভিশন দেয়া হলেও তাকে ডিশ সংযোগ দেয়া হবে না বলে খালেদা জিয়াকে জানানো হয়।

তখন খালেদা জিয়া বলেন, ‘বিটিভি দেখার জন্যে আমার টেলিভিশনের দরকার নেই।’

 রবিবার কারা অধিদফতরের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র এসব তথ্য জানিয়েছেন।

সূত্র জানায়, কারাগারে খালেদা জিয়াকে দুইটি জাতীয় দৈনিক পড়ার সুযোগ দেয়া হয়েছে।

কারাবন্দি সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে খালেদা জিয়াকে রবিবার বিকাল থেকে ডিভিশন দেয়া হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন কারামহাপরিদর্শক (আইজি, প্রিজন্স) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইখতেখার উদ্দীন। এছাড়া গৃহকর্মী ফাতেমাকেও তার সঙ্গে থাকার অনুমতি দেয়া হয়েছে।

আইজি (প্রিজন্স) জানান, আদালত থেকে ডিভিশনের আদেশ পাওয়ার আগ পর্যন্ত খালেদা জিয়ার ছিলেন সাধারণ বন্দি। তার পরও তাকে এমন সুবিধা দেয়া হয়েছে, যেসব সুবিধা কেবল ডিভিশনপ্রাপ্ত বন্দিরা পান।

রবিবার ডিভিশন সংক্রান্ত আদেশ পাওয়ার পর এদিন বিকাল থেকে তাকে জেলকোড অনুযায়ী ডিভিশনপ্রাপ্ত বন্দি হিসেবে সব ধরনের সুযোগ সবিধা দেয়া হচ্ছে।

এদিকে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় দণ্ডিত হয়ে চার দিন ধরে কারাগারে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। মামলার সার্টিফায়েড কপি না পাওয়ায় আজ রবিবার উচ্চ আদালতে জামিনের বিষয়ে আপিল করার কথা থাকলেও জামিন আবেদন করতে পারেনি আইনজীবীরা। আগামীকাল সোমবার সার্টিফায়েড কপি পাবেন কিনা এ বিষয় সন্দেহ রয়েছে।

উল্লেখ্য, ৮ ফেব্রুয়ারি দুদকের দায়ের করা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসনকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫ এর বিচারক ড. আখতারুজ্জামান। এই মামলায় অন্য আসামি খালেদার বড় ছেলে তারেক রহমানকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়।

আদালত বলেছেন, বয়স ও সামাজিক অবস্থা বিবেচনায় কম সাজা দেয়া হয়েছে সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীকে। রায়ের পরই নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কারাগারে নেয়া হয় বেগম জিয়াকে। দণ্ডবিধি ১০৯ ও ৪০৯ ধারায় খালেদা জিয়াসহ বাকিদের সাজা দেয়া হয়। কারাদণ্ডের পাশাপাশি সব আসামিকে দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেয়া হয়।

মামলায় মোট আসামি ছয়জন। তার মধ্যে তিনজন পলাতক। তারা হলেন- বিএনপির জ্যেষ্ঠ ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী এবং বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।

এ মামলায় সাক্ষ্য দিয়েছেন ৩২ জন। ১২০ কার্যদিবসের বিচারকার্য শেষ হয়েছে ২৩৬ দিনে। আত্মপক্ষ সমর্থনে সময় গেছে ২৮ দিন। যুক্তি উপস্থাপন হয়েছে ১৬ দিন এবং আসামিপক্ষ মামলাটির বিভিন্ন বিষয় নিয়ে উচ্চ আদালতে গেছেন ৩৫ বার।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় একটি মামলা করে দুদক।

Share Button


« (পূর্ববর্তী খবর)





ADVERTISEMENT

Contact Us: 8 Offtake Street, Leppington, NSW- 2569, Australia. Phone: +61 2 96183432, E-mail: editor@banglakatha.com.au , news.banglakatha@gmail.com

ADVERTISEMENT